BREAKING

আপনার যা প্রয়োজন এখানে সার্চ করুন

বৃহস্পতিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০২০

অস্টিওম্যালেশিয়া রােগের কারণ , লক্ষণ এবং প্রতিরােধক ব্যবস্থা।ভিটামিন D- এর অভাবজনিত রােগ।Diseases due to vitamin D deficiency

ভিটামিন D- এর অভাবজনিত রােগ ( Diseases due to vitamin D deficiency


প্রাত্যহিক খাদ্যে ভিটামিন D তথা ক্যালসিফেরলের অভাব ঘটলে , মানবদেহে যে অপুষ্টি দেখা দেয় , তার ফলে দুটি রােগ প্রকট আকার ধারণ করে । এই রােগ দুটি হল— 1)রিকেট ( rickets ) এবং 2)অস্টিওম্যালেশিয়া ( osteomalacia ) ।
অস্টিওম্যালেশিয়া রােগের কারণ , লক্ষণ এবং প্রতিরােধক ব্যবস্থা।ভিটামিন D- এর অভাবজনিত রােগ।Diseases due to vitamin D deficiency
অস্টিওম্যালেশিয়া রােগ


 নীচে অস্টিওম্যালেশিয়া রােগের কারণ , লক্ষণ এবং প্রতিরােধক ব্যবস্থা আলোচনা করা হল ।

অস্টিওম্যালেশিয়া ( Osteomalacia )

রোগের কারণ:-

বয়ঃপ্রাপ্তির পর মানবদেহে ক্যালশিয়াম ও ভিটামিন D বা ক্যালসিফেরলের  অভাব ঘটলে বয়স্কদের অস্টিওম্যালেশিয়া রােগ দেখা দেয় ।
গর্ভাবস্থায় এবং প্রসূতিকালে বিভিন্ন কারণে অস্টিওম্যালেশিয়া হয় । 
যেমন— 
     (১) দেহের মধ্যে ভ্ৰূণ বৃদ্ধি পেতে থাকলে , দেহের বিভিন্ন অঙ্গের হাড়ের ওপর চাপ পড়ে । (    ২) ঘন ঘন সন্তানসম্ভবা হলে দেহের ক্যালশিয়ামের ভাণ্ডার শূন্য হয়ে যায়।

    ৩)বৃক্ক , যকৃৎ , পাকস্থলী ও অন্ত্রের ব্যাধির ফলেও অস্টিওম্যালেশিয়া দেখা দিতে পারে ।

 লক্ষণ :

  • অস্থির ঘনত্ব বা গাঢ়ত্ব কমে যায় । ফলে অস্থি ভঙ্গুর হয়ে পড়ে ।
  • অস্থিতে মাঝে মাঝে অল্প যন্ত্রণা অনুভূত হয় । আবার কখনাে কখনাে যন্ত্রণা ভীষণ বেড়ে যায় ।
  •  অস্থি বেঁকে যায় । ও অস্থির মধ্যে প্রচুর পরিমাণে অস্টিঅয়েড কলার উপস্থিতি দেখা যায় ।
  •  পেশি দুর্বল হয় এবং আক্রান্ত ব্যক্তি সিঁড়ি দিয়ে ওঠানামা করতে খুব কষ্ট পায় ।
  • রক্তরসে ক্যালশিয়াম ও ফসফরাসের পরিমাণ কমতে থাকে ।
  •  এই রােগে আক্রান্ত ব্যক্তির মেরুদণ্ড এবং পায়ের হাড় বেঁকে যায় । তবে হাতের হাড়ে তেমন কোনাে প্রভাব দেখা যায় না ।

প্রতিরােধক ব্যবস্থা : 

  • বয়স্কদের অস্টিওম্যালেশিয়া যাতে না ঘটে , তার জন্য নিম্নলিখিত ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত ।

  •  এই রােগে আক্রান্ত হওয়ার আগে থেকে সুষম খাদ্য বা পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন D- সমৃদ্ধ খাদ্যের ব্যবস্থা করা হলে এই রােগের বিরুদ্ধে প্রতিরােধ ব্যবস্থা গড়ে ওঠে ।

  • বয়স্কদের খাদ্যে ক্যালশিয়াম এবং ফসফরাসের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করলে , এই রােগ প্রতিরােধ করা যায় ।

  • বয়স্কদের খাদ্যে দুধ , দুগ্ধজাত অন্যান্য খাদ্য সঠিক মাত্রায় অন্তর্ভুক্ত করতে পারলে , এই রােগের বিরুদ্ধে প্রতিরােধ ব্যবস্থা গড়ে ওঠে ।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Do you have any doubts? chat with us on WhatsApp
আমি আপনাকে কি ভাবে সাহায্য করতে পারি? Skguidebangla is typing ...
আপনি এখানে লিখুন...